ফেসবুকের আদলে বাংলাদেশে চালু হলো হার্টসবুকের

ফেসবুকের আদলে বাংলাদেশে চালু হলো হার্টসবুকের

ছবি সংগৃহিত।

বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ফেসবুকের পাশাপাশি যুক্ত হল ‘হার্টসবুক’ (heartsbook.com) বা এইচবি। ফেসবুকের মতই হার্টসবুক বা এইচবিতে আছে লাইক, কমেন্ট ও শেয়ারিং সিস্টেম। হার্টসবুকে টিভি দেখার পাশাপাশি আরও থাকছে মেসেঞ্জার, ছবি, অডিও এবং ভিডিও পোস্ট করার সুযোগ। রবিবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনী মিলনায়তনে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমটির উদ্বোধন করেন এর চেয়ারম্যান এবং সিইও মেজবাহ উদ্দিন সরকার রুবেল।

হার্টসবুকের ভাইস চেয়ারম্যান অ্যান্ড ডিরেক্টর মাহাবুবা মোহাম্মদ বাবন সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান অ্যান্ড ডিরেক্টর শামিমা সরকারসহ হার্টসবুকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র, চীন, তুরস্ক, রাশিয়া, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর, শ্রীলংকা, মালয়েশিয়া, হংকং, ইউক্রেন, তাইওয়ান, উজবেকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, সোমালিয়া, নাইজেরিয়া ও ফিলিপাইনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধনের সময় হার্টসবুকের চেয়ারম্যান অ্যান্ড সিইও মেজবাহ্ উদ্দিন সরকার রুবেল বলেন, বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগের ক্ষেত্রে হার্টসবুক (heartsbook.com) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। একজন ফেসবুক ইউজারের বন্ধু সংখ্যা ৫ হাজার পর্যন্ত সীমাবদ্ধ। অথচ হার্টসবুকে একসঙ্গে ১০ হাজার বন্ধু বানানো যাবে। 

এছাড়াও লাইভ ভিডিও এবং ওয়েব সিস্টেম রয়েছে হার্টসবুকে। যেকোনও স্মার্ট ফোনের গুগল প্লে স্টোর থেকে heartsbook.com লিখে সার্চ দিয়ে অ্যাপটি ডাউনলোডের পর সাইনআপ করে সহজেই হার্টসবুক ব্যবহার করা যাবে।

এক প্রশ্নের জবাবে হার্টসবুকের সিইও বলেন, এটা শতভাগ নিরাপদ। কোনও রকমের তথ্য চুরির সম্ভাবনা নেই। সেভাবেই এটা তৈরি করা হয়েছে। বাংলাদেশে আজকে চালু হল। ধীরে ধীরে এটি বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়বে।