আইসিসিতে মামলার জন্য ওআইসি’র সাহায্য চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

আইসিসিতে মামলার জন্য ওআইসি’র সাহায্য চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

মিয়ানমারে বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অধিকার রক্ষায় আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিসি) মামলা দায়েরের বিষয়ে ইসলামিক সহযোগিতা সংস্থাভুক্ত (ওআইসি) দেশগুলোকে সাহায্যের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসঙ্গে অর্থনীতি, নিরাপত্তা ও বাস্তুতন্ত্রের প্রতিকূল পরিবর্তন মোকাবিলায় কৌশল গড়ে তুলতেও ওআইসির প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শনিবার (১ জুন) সকালে সৌদি আরবের মক্কায় ওআইসির চতুর্দশ সম্মেলনে এশিয়া গ্রুপের পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখার সময় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। মক্কার সাফা প্যালেসে এই অনুষ্ঠান হয়।

গত মার্চে আবুধাবিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যু আইসিসিতে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে যে আলোচনা হয়েছিল সে প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘এ বিষয়ে অগ্রবর্তী ভূমিকা পালনের জন্য আমরা গাম্বিয়াকে ধন্যবাদ জানাই। আইসিসিতে রোহিঙ্গাদের অধিকার রক্ষার বিষয়ে মামলা দায়েরে স্বেচ্ছায় তহবিল ও কৌশলগত সহযোগিতা দিতে ওআইসিভুক্ত দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানাই আমরা।’

অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গাকে বাংলাদেশ আশ্রয় দিয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফেরত যাওয়ার বিষয়টি এখনও অনিশ্চিত। এর কারণ মিয়ানমার তার উত্তরাঞ্চলে রোহিঙ্গাদের নিরাপদে বসবাসের পরিবেশ তৈরির অঙ্গীকার থেকে বারবার পিছিয়ে যাচ্ছে।’  

সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের প্রতি বাংলাদেশের ‘জিরো টলারেন্স’ নীতির কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। এ ব্যাপারে ওআইসির সক্রিয়তা প্রত্যাশা করেন তিনি।

ওআইসিভুক্ত ৫৭টি সদস্য রাষ্ট্রের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান এবং প্রতিনিধিরা এই সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন।

সম্মেলনে যোগ দেওয়ার পর শনিবার সন্ধ্যায় ওমরাহ পালন করবেন শেখ হাসিনা। রবিবার মদিনায় হযরত মুহাম্মদ (স.) এর রওজা জিয়ারত করবেন তিনি। সৌদি আরব সফর শেষে সোমবার ভোরে ফিনলান্ডের উদ্দেশে রওনা হবেন তিনি। ফিনল্যান্ডে পারিবারিকভাবে ঈদ পালন করবেন প্রধানমন্ত্রী। সূত্র: বাসস। 

ad