চিকিৎসকদের অ্যাপ্রনের মর্যাদা ধরে রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

চিকিৎসকদের অ্যাপ্রনের মর্যাদা ধরে রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সংগৃহীত

মেডিকেল কলেজে ভর্তি হওয়া কষ্টসাধ্য ও সাধনার ব্যাপার উল্লেখ করে পড়াশোনার মাধ্যমে নিজেদের যোগ্য চিকিৎসক হিসেবে গড়ে তুলতে নবীন শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। এ সময় চিকিৎসকদের অ্যাপ্রনের মর্যাদা ধরে রাখতে সদা সোচ্চার থাকতে শিক্ষার্থীদের আহ্বান জানান তিনি।

বুধবার (০৫ জুন) সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডা. মিলন অডিটোরিয়ামে প্রথম বর্ষ এমবিবিএস শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টশন প্রোগ্রামে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, মেডিকেল কলেজে ভর্তি হতে পারাটা একটা কষ্টসাধ্য ও সাধনার ব্যাপার। এ জন্য তোমাদের অভিনন্দন। চিকিৎসকরা সৃষ্টিকর্তার আশীর্বাদ নিয়ে জন্ম নেন। চিকিৎসকদের অ্যাপ্রনের যে মর্যাদা সেটা তোমাদের ধরে রাখতে হবে। এজন্য যথাযথভাবে পড়াশোনা করে একজন যোগ্য চিকিৎসক হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। নিয়মানুবর্তিতা মেনে চলতে হবে। 

তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের বিদেশে পড়াশোনার সুবিধার্থে অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিল তৈরি করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা যাতে সহজেই বাইরে পড়াশোনা করে নিজেদের দক্ষ ও সমৃদ্ধ করে গড়ে তুলতে পারে সেজন্য নানামুখী প্রচেষ্টা চলমান আছে।

এ সময় ডিজিটাল ব্যবস্থা শিক্ষায় যে অবারিত সুযোগ সুবিধা আনছে তা কাজে লাগিয়ে নিজেদের দক্ষ ও যোগ্য করে গড়ে তোলার আহ্বান জানান ডা. সামন্ত লাল সেন।

স্বাস্থ্যসেবাকে আরও উন্নত পর্যায়ে নেওয়ার প্রত্যয় জানিয়ে তিনি বলেন, আমি সম্প্রতি যুক্তরাজ্য ও সুইজারল্যান্ডে সরকারি সফরে গিয়েছি। আমি যেখানেই গিয়েছি দেখেছি বিদেশে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা ও চিকিৎসকদের মান নিয়ে সবার মাঝে ইতিবাচক ধারণা আছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিভিন্ন ইভেন্টে বিভিন্ন দেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও প্রতিনিধিদের কাছে আমাদের স্বাস্থ্যসেবা ব্যাপক প্রশংসিত ও সমাদৃত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গড়ে উঠা কমিউনিটি ক্লিনিক এখন পুরো বিশ্বে স্বাস্থ্যখাতের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃত। এটা আমাদের ধরে রাখতে হবে।

‘স্বাস্থ্য সেবা, চিকিৎসকের মান, শিক্ষার মান বৃদ্ধি করে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যসেবা খাতকে আরও উন্নত করে এমন পর্যায়ে নিয়ে যেতে হবে। যেন পুরো বিশ্বে এটা একটা উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত হয়ে থাকে,’ বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন— স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব মো. আজিজুর রহমান, স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. মো. টিটো মিঞা, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি ডা. জামাল উদ্দিন চৌধুরী, স্বাচিপ মহাসচিব অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান মিলন, ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. শফিকুল আলম চৌধুরী প্রমুখ।