"জীবনের নিরাপত্তা সবার জন্য প্রয়োজন"

"জীবনের নিরাপত্তা সবার জন্য প্রয়োজন"

শামীম ওসমান

 

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি কথা দিয়ে শুরু করতে চাই "মরিতে চাহিনা আমি সুন্দর ভুবনে মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই" (কবিতা: প্রাণ)এ পৃথিবী এক অদ্ভুত সৃষ্টি! অসাধারণ সৃষ্টি ।এ পৃথিবী এক সময় ছিল না। এখন আছে। একটা সময় থাকবে না। এ পৃথিবীর প্রকৃতি এতো বিচিত্র যার সৌন্দর্য মানুষ দেখে শেষ করতে পারবে না ।এ পৃথিবীর মাঝে সৃষ্টিকর্তার সবচেয়ে সুন্দর যে প্রাণী সৃষ্টি করেছেন তাহলো মানুষ। সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি । অসাধারণ সৃষ্টি অতুলনীয় সৃষ্টি। মানুষের মাঝে এতো বিচিত্র ধ্যান-ধারণা চিন্তা-চেতনা বুদ্ধি মন-মানসিকতা , বিবেক-বুদ্ধি। মানুষের বিবেক বুদ্ধি জ্ঞান বিজ্ঞান এতো সমৃদ্ধ যে আজকের পৃথিবীর মাঝে বিভিন্ন আবিষ্কারের মাধ্যমে প্রমাণিত। মানুষ হিসেবে সবারই মান সম্মান পাওয়ার অধিকার আছে। অধিকার আছে জীবনের নিরাপত্তা পাওয়ার মানুষ সে যে ধরনের হোক না কেন । তাকে অন্যায় ভাবে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য অপমানিত অপদস্থ বঞ্চিত লাঞ্ছিত করার অধিকার অধিকার কারো নেই। মানুষের প্রাণ নাশ হয় এমন কোন আচরণ তার সাথে করা কোনোভাবেই উচিত নয়। অথচ আজকের বিশ্বে এসব যেন তুচ্ছ ঘটনা । দিনে দুপুরে মানুষ মানুষের প্রাণ নাশ করছে । আমরা জানি ভারত একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র যেখানে রয়েছে বহু ধর্মের অনুসারীদের বসবাস ।অথচ তাবরেজ আনসারীর মত ব্যক্তি জয় শ্রীরাম না বলার কারনে তাকে দীর্ঘ ১৮ ঘণ্টা নির্যাতন করে পুলিশের হাতে দিয়েছে। আর পুলিশ বলেছে সে মোটরসাইকেল চুরির সাথে জড়িত । তাকে নির্যাতনের চারদিন পর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয। হাসপাতালে তার মৃত্যু ঘটে ।যদি সে চুরির সাথে জড়িত থাকে তাহলে তাকে আইন অনুযায়ী শাস্তি ভোগ করতে হবে। এবং আইন তাকে দোষী সাব্যস্ত করে শাস্তির ব্যবস্থা করবে । ১৯৪৮ সালের জাতিসংঘের মানবাধিকার ঘোষণায় বলা আছে দোষী সাব্যস্ত না হওয়ার আগ পর্যন্ত ব্যক্তি নিরপরাধ। আমেরিকাতে দাস প্রথা কে কেন্দ্র করে (১৮৬১-১৮৬৫)গৃহযুদ্ধে লিপ্ত ছিল । যে গৃহযুদ্ধের প্রায়ই ৬ লক্ষ সৈনিক প্রাণ হারায়।মানুষের সম্মান রক্ষা করতে গিয়ে নেলসন ম্যান্ডেলা বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলন করে দীর্ঘ 27 বছর কারাবন্দি ছিলেন। বিশ্বের সকল দেশে মানবাধিকার রক্ষা করতে সাংবিধানিক আইন রয়েছে । বাংলাদেশের সংবিধানে তৃতীয় ভাগে মৌলিক অধিকার সংরক্ষিত হয়েছে যেখানে (২৬-৪৭) টি অনুচ্ছেদ রয়েছে। ২৭ নং অনুচ্ছেদে বলা আছে সকল নাগরিক আইনের দৃষ্টিতে সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকার রয়েছে। ৩২ নং অনুচ্ছেদে জীবন ও ব্যক্তি-স্বাধীনতার অধিকার সংরক্ষণ করা হয়েছে। ২৮ নং অনুচ্ছেদে বলা আছে কেবল ধর্ম গোষ্ঠী বর্ণ নারী-পুরুষ ভেদ বা জন্মস্থান এর কারণে কোন নাগরিকের প্রতি রাষ্ট্র বৈষম্য প্রদর্শন করবে না। আজকের বাংলাদেশ সহ বিশ্বের সমস্ত দেশের জন্য এই দাবিগুলো অত্যন্ত জরুরী। এমনকি সমস্ত বিবেকবান মানুষগুলোর প্রাণের দাবি যে, জীবনের নিরাপত্তা সবার জন্য প্রয়োজন : ব্যক্তি যে ধর্মেরই হোক । ব্যক্তি সাদা হোক আর কাল হোক ধনী হোক আর গরিব হোক। উচ্চবংশের হোক আর নিম্ন বংশের হোক। সংখ্যালঘু আর সংখ্যাগুরু হোক। লম্বা হোক আর খাটো হোক দেখতে সুন্দর হোক আর কুৎসিত ।ছেলে হোক আর নারী। সে উচ্চ শ্রেণীর নাগরিক হোক আর নিম্ন শ্রেণীর নাগরিক হোক। হোক সে মানুষ ছাড়া অন্য কোন প্রাণী।

 

শামিম ওসমান

ad